Kaspersky APAC

দুর্দান্ত টুইস্টের সেরা তিনটি ক্রাইম এবং মিস্ট্রি বেসড বাংলা সিনেমা

সিনেমায় বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি এখন অনেক বেশি সমৃদ্ধ। সব ধরণের চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে এখন পশ্চিমবঙ্গে। পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু সিনেমা দুই বাংলাতেই সমান ভাবে জনপ্রিয়। আজকে এমনই তিনটি সিনেমা নিয়ে কথা বলব যেগুলো প্রায় সব বয়সী দর্শক দারুণ ভাবে উপভোগ কর‍তে পারবে। তিনটি সিনেমার শেষেই আপনি টুইস্ট পাবেন, এই সিনেমা গুলোর শেষ কয়েক মিনিট আপনাকে অবাক করে দেয়ার জন্য যথেষ্ট! 

১. বাইশে শ্রাবণ – Baishe Srabon (2011)

সিনেমাটি রিলিজ করা হয় ২০১১ সালে। পরিচালনা করেছেন শ্রীজিৎ মুখার্জি। অভিনয় করেছেন প্রসেনজিৎ, পরমব্রত, রাইমা সেন ছাড়াও আরও অনেকে। সিনেমাটিতে প্রসেনজিৎ এর অভিনয়শৈলি ছিলো দুর্দান্ত এবং মন ছুঁয়ে যাবার মত। সিরিয়াল কিলিং নিয়ে তৈরি হওয়া এই সিনেমাতে আপনি পাবেন সাসপেন্স, রহস্য, গোয়েন্দাগিরি এবং হালকা রোমান্টিকতার ছোঁয়া। সিনেমাটির প্লট ছিল এমন, 

কলকাতা শহরে রাতের বেলায় ঘটে চলেছে একের পর এক খুন। কে বা কারা এই খুন গুলো করছে সেটা কোন ভাবেই বের করা যাচ্ছে না। সবচেয়ে আশ্চর্যজনক বিষয় হচ্ছে খুন হচ্ছে সব সমাজের নিম্ন শ্রেণীর মানুষ। খুন হওয়া মানুষ গুলোকে দেখলেই বুঝা যায়, প্রতিহিংসা বা প্রতিশোধের জন্য তাদের হত্যা করা হয় নি।  

প্রতিটা লাশের পাশে পাওয়া যায় এক কবির বিখ্যাত কবিতার লাইন। এই রহস্য বের করার দায়িত্ব পড়ে অভিজিৎ নামের এক পুলিশ অফিসারের হাতে। সে যখন কোন কূলকিনারা পাচ্ছে না তখন দ্বারস্থ হন প্রাত্তন অফিসার প্রবীর রায়ের।

অনেক চেষ্টার পর শেষপর্যন্ত রহস্য উদঘাটিত হয়, জানা যায় কে ছিল এত গুলো খুনের পেছনে। খুনির পরিচয়টা জেনে আপনি হকচকিয়ে যেতে বাধ্য হবেন।

২. ড্রাকুলা স্যার – Dracula Sir 2020



অসাধারণ একটি সিনেমা বলা যায় সব কিছুর ম্যাজিক্যাল উপস্থাপনা। অনির্বাণ এর অভিনয় ডায়লগ ডেলিভারি আপনাকে মুগ্ধ করবে। বাঙালির আবেগ এবং সাহিত্যের মিশ্রণে চমৎকার কিছু সৃষ্টি করে দেখিয়েছেন দেবালয় ভট্টাচার্য। 

সিনেমাটি শেষ করে যেকেউ কিছু স্তব্ধ হয়ে থাকতে পারে কিছুক্ষণের জন্য। স্টোরি লাইন, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, সুন্দর ক্যামেরার কাজ আপনাকে বলতে বাধ্য করবে, এটি চমৎকার একটি সিনেমা। যারা সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার দেখতে পছন্দ করেন তাদের জন্য মাস্ট ওয়াচ সিনেমা হতে পারে এটি।  

সিনেমার প্লটের কথা যদি বলি, 

গল্পের নায়ক রক্তিম সমাজের অন্য সবার চেয়ে আলাদা। সবাই তার দিকে ভিন্নভাবে তাকায় তার কারণ তার সামনের দুটি দাঁত। বাচ্চারা তাকে ভয় পায়। সমাজে কেউ তাকে পছন্দ করে না, তার বন্ধুও নাই কেউ। সিনেমাতে কখনো কখনো ১৯৭১ সালের প্রেক্ষাপট দেখানো হয় কখনো ২০২০ সালের। দুই জায়গাতেই রক্তিম আছে। কোথায় যেন একটা মিল রয়েছে। কিভাবে যেন দুই জনই কানেক্টেড। তবে তার কি পুনর্জন্ম হয়েছে? এই ধাঁধার সমাধান পাবেন আপনি একেবারে সিনেমার শেষে গিয়ে। 

সিনেমাটির বেশ কয়েকটা ডায়ালগ আপনার মনে অনেকদিন গেঁথে থাকবে, 

“জানো তো প্রিয়তমা, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ প্রেমপত্রগুলো লিখা হয়েছিলো রণাঙ্গন থেকে”

“কোথায় যাবে তুমি? কোথায় পালাবে? কতদূর যাবে পালিয়ে?”

“পাহাড়ের মতো মৃত্যু!”

৩. দ্বিতীয় পুরুষ – Dwitiyo Purush 2020

সেরা টুইস্টেড সিনেমা হিসেবে আমি তিন নাম্বারে রাখব দ্বিতীয় পুরুষকে। সিনেমাটি মুক্তি পায় ২৩ জানুয়ারি ২০২০ সালে। পরিচালনা করেন শ্রীজিৎ মুখার্জি, অভিনয় করেছেন পরমব্রত, রাইমা সেন এবং অনির্বাণ ভট্টাচার্য। এই সিনেমার স্পায়লার ফ্রি প্লট সম্পর্কে যদি,  

কলকাতা শহর, সালটা তখন ১৯৯৩। কলকাতার চায়না টাউনে তিনটা খুন হল। খুনির বয়স বেশি না, দেখে মনে হয় রাস্তার ছেলে, নাম খোকা। সহজেই পুলিশ তাকে ধরে ফেলল। পঁচিশ বছরের জেল হল খোকার। খোকার মানুষ খুন করার স্টাইল একটু ভিন্ন। সে সবাইকে ক্ষুর দিয়ে হত্যা করে। গলায় ক্ষুর বসিয়ে দেয় এবং কপালে খুদাই করে খোকা লিখে রাখে। 

মাঝ খানে অনেক বছর কেটে গেছে, সময়টা ২০১৯ সাল। খোকা জেল থেকে ছাড়া পায়। আবার একটা খুন হয় একই পদ্ধতিতে, ঠিক পঁচিশ বছর আগের সেই স্টাইলে। কে করেছে এই খুন এটা বের করার দায়িত্ব দেয়া হয় পুলিশ অফিসার অভিজিৎ কে। একের পর এক লোমহর্ষক খুন করেই যাচ্ছে খোকা । কে এই খোকা এটা কি আগের সেই খোকা নাকি অন্য কেউ। বের করতে রহস্য ক্রমেই ঘনীভূত হচ্ছে। 

শেষ পর্যন্ত খোকাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় অভিজিৎ, ঠিক তখনই এমন এক সত্য সে জানতে পারে যেটা শুনে আপনার মাথাই ঘুরে যেতে পারে। কি ছিল সেই সত্য এটা জনাতে আপনাকে দেখতে হবে ক্রাইম, মিস্ট্রি বেসড এই থ্রিলার সিনেমাটি।